আবার যুদ্ধ হলে আমি রাজাকার হব

তিন যুগ পেরিয়ে গেল, কেউ কথা রাখেনি।
আমার বাবার কথা কেউ মনে রাখেনি।
কেউ খুঁজে দেখেনি আমার হারানো ভাইয়ের লাশ।
কেউ মনে রাখেনি আমার বোনের সর্বনাশ।
তাই আজ আমি বিদ্রোহী…

আবার যুদ্ধ হলে আমি রাজাকার হব,
আবার যুদ্ধ হলে আমি বন্দুক হাতে নেব,
তারপর… …
একটা একটা করে “বাংলার সোনার ছেলে” গুলি করে মারব।
আবার যুদ্ধ হলে আমি রাজাকার হব,
আবার যুদ্ধ হলে লাল-সবুজ পতাকাটা আমি টুকরো টুকরো করে খাব।
কারণ… …
গত তিন যুগেও ওরা আমার পিতৃহত্যার কোন প্রতিশোধ নেয়নি।
কোন মূল্য পায়নি আমার বোনের সর্বস্ব বিসর্জন,
ওরা ভুলে গেছে শত শত মায়ের গণধর্ষণ।
তাইতো আজ পতাকাটা পত পত করে ওড়ে গাড়িতে,
কুকুর ছানা রাজাকারগুলো সব শাসকের গদিতে।

আবার যুদ্ধ হলে আমি রাজাকার হব,
তারপর…
যুদ্ধ শেষে গদি হবে আমার, লাল গালিচা আমার, পতাকাও আমার,
আমি হব শাসক রাজাকার।
তারপর?
কুকুর ছানাদের হাত থেকে কেড়ে নেব ঐ লাল-সবুজ “পতাকা”-
আমার বাবার রক্ত, বোনের লজ্জ্বায় হয়েছিলো যা আঁকা।
হায়, সেই পতাকায় আজ ছোপ ছোপ কালো দাগ !
পতাকার পানে চেয়ে আমার ভাইয়ের লাশ আজ নির্বাক !

আবার যুদ্ধ হলে আমি রাজাকার হব…
সাবধান হ হারামজাদার দল,
তোদের আমি চিবিয়ে খাব।
হে ত্রিশ লাখ আত্মা, তোমাদের রক্ত ছুঁয়ে শপথ নিলাম,
আবার যুদ্ধ হলে আমি রাজাকার হব।

শুধু সেই দিনটির প্রতীক্ষা… কবে হবে সেই যুদ্ধ?
আমি যুদ্ধ চাই, শুধু আর একবার…
কবে হব আমি রাজাকার?

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *