blog

মজার অনুকাব্য-2 (এক দফা দুই দাবি)

১।ভালো করে দাঁত মেজে,বসে থেকো বউ সেজে ! ২।ভালোবাসা পাইনি,তুই একটা ডাইনি! ৩।কথায় কথায় দিমু গালি, তোমার বোন আমার শালী! ৪।গিয়ে ছিলাম  তোমার বাড়ী!খেয়ে ছিলাম  জুতার বাড়ি! ৫।প্রেমের রাজ্যে পৃথিবী  অন্ধকারময়,পেত্নীকে দেখলেও হুর-পরী মনে হয়! ৬।ভালোবাইসা ফাইসা গেছি,কোনো রকম বাইচা আছি! ৭।মন,চোরাবালি!প্রেম,জোড়াতালি! ৮।পানির অপর নাম জীবন,প্রেমের অপর নাম মরণ! ৯।কইলাম তারে-“আমি খুব ভালো পোলা” মুচকি হাইসা মাইয়া কয়-“ভাইজান আপনার, চেইন খোলা”! ১০।“বিলাই মারা পাপ”কইসে তোমার বাপ!মারমু…

Read More

মজার অনুকাব্য-১ (মাইর হবে তার সাউন্ড হবে না)

১।চুল তার কবে কার,  শ্যাম্পু দেয়,মাসে এক বার! ২।না বুঝলে  নাই!তবু তোকে চাই! ৩।আম পাতা  জোড়া জোড়া,তোমায় দেবো ফুলের তোড়া! ৪।ভালোবাসা  চুমুতেই,কাছে আয় চুমু দেই!? ৫।তোর মন  বোঝা দায়!আমারটা কি বোঝা যায়? ৬।জন্ম হোকযথা তথা,পয়সা পাতিইবড় কথা। ৭।তুই আমার কবুতর,আমি তোর হবু বর! ৮।বুঝি না ছাই ক্যামনে কি!চলবে জীবন এমনে কি ?! ৯।মাইয়া প্রেম করলে কর, নইলে দুরে গিয়া মর ! ১০।তাই তাই তাই খায়া কাম নাই,প্রেম-পিরীতি…

Read More

হে উর্বশী রমণী

আমার অবাধ্য হাত দুটোশুধু তোমাকেই ছুঁতে চায়,আমার বেপরোয়া চোখ দুটোশুধু তোমাকেই দেখতে চায়।আমি প্রতারক নই,এমন প্রতীজ্ঞায় আশ্বস্ত হতে পারো কতটুকু?বিশ্বস্ত বন্ধুও সময়ে অবিশ্বাসী হয়ে উঠতে পারে,প্রগলভ্তার সীমা ছাড়িয়েঅনায়াসে প্রলোভনে জড়াতে পারে।হে উর্বশী রমণী- বন্ধু আমার,তোমার সংস্পর্শে আমার চেতনার পৌরুষসহসাই জেগে ওঠে গোপনে।আমি ক্রমশঃই পাপিষ্ঠ হয়ে উঠি একান্ত নিভৃতে।তুমি ভাবতেই পারো,আমি বন্ধুত্বের সীমা লঙ্ঘনকারী এক প্রতারক।আমি…

Read More

কবর কবিতা (গাঁজা খোর ভার্সন)

এইখানে মোর প্রেমিকার সমাধী আফিম গাছের তলেএতটি বছর স্মৃতিতে রেখেছি গাঁজার টানে টানে।শৈশব থেকে করেছিলাম প্রেম চাঁদের মতন মুখছ্যাকা খেয়ে বিয়ে হলো না বলে কেঁদে ভাসাইত বুক। স্কুল কলেজে ঘুরিয়া ফিরিতে ভাবিয়া হইতাম সারাসারা ক্যাম্পাস ভরি এত প্রেম মোর ছড়াইয়া দিলো কারা!সোনালী সকালে দেখিতে তাহারে দু-নয়ন ভরিসাইকেল লইয়া পড়িতে ছুটিতাম গাঁয়ের ও পথ ধরিযাইবার কালে…

Read More

চল চল চল (নিউ ভার্সন)

চল চল চলউর্ধ মহলে চোরের দলখাটিয়ে প্রভাব খাটিয়ে বলদেশের বারোটা বাজিয়ে চলচলরে চলরে চল।। নিজের কপালে হানি আঘাতজনতা খাইবে পান্তা ভাতআখের গোছায় নেতার হাতদেশ সেবা তো ছলচলরে চলরে চল।। গরিবের লাগিয়া গাহিয়া গানগ্রামকে বানাবো মহাশ্মশানযুবদের চরিত্র করিব দুর্বলচলরে চলরে চল।। উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়েনেতারা সব চড়িয়ে ছাড়েচোরের মায়ের বড় গলাএমনই সব ছলচলরে চলরে চল।। বাবু…

Read More

সবাই কথা রেখেছে (উল্টো কবিতা)

সবাই কথা রেখেছে। আঠারো বছর কেটে গেলো,সবাই কথা রেখেছে। ছেলে বেলায় “উরাধুড়া” ব্যান্ডবলেছিলো,পয়লা বৈশাখের দিনহবে কনসার্ট।কনসার্টে তারা ঠিকই এসেছিলো,যেতে পারিনি কেবল আমি। বরুণার সাথে ছিলো সেদিন প্রথম ডেটিং। মামাতো ভাই কুদ্দুস বলেছিলো“বড় হ গাধা,তোকে আমি ফায়ার ছবি দেখাতে নিয়ে যাবো”কুদ্দুস, তুই আমাকে ফায়ার দেখিয়েছিলি।ভালো কথা! তবে আমি আজকালআরো ডেঞ্জারাস জিনিস দেখি! একটাও ল্যাপটপ কিনতে পারিনি…

Read More

আসিফের রনলারা ভার্সন

মুল গান:বুকের জমানো ব্যাথাকান্নার নোনা জলে ঢেউ ভানে চোখের নদীতে। অন্যের হাত ধরে চলে গেছো দুরে পারিনা তোমায় ভুলে যেতে ও প্রিয়া ও প্রিয়া তুমি কোথায়?ও প্রিয়া ও প্রিয়া তুমি কোথায়? রবীন্দ্রনাথ ভার্সন »“মম বক্ষ জুড়ি ব্যাথা, হেরিলো না কেউ,কাদিনু বসিয়া অশ্রু নদে ক্ষণে ক্ষণে ভানিছে ঢেউ। গিয়াছ চলিয়া ধরি অন্য হস্তকেমনে ভুলিব তব স্মৃতি…

Read More

মমতাজের গানের রজীকা ভার্সন

মূল গানঃবন্ধু যখন বউ লইয়াআমার বাড়ির সামনে দিয়ারঙ্গ কইরা হাইট্টা যায়ফাইট্টা যায় বুকটা ফাইট্টা যায় রবীন্দ্রনাথ ভার্সনঃ সখা যবে বঁধু নিয়ামম বাটীর দ্বার দিয়াহাঁটিয়া যায়।মম বক্ষ ফাটিয়া যায়, মম বক্ষ ফাটিয়া যায়।তার চমকিত আঁখি,আমি শুধু দেখিনয়ন হইতে গড়াইয়া পড়ে জলকী করিবো সখী মোরে আজ বলসখা হাসিয়া খেলিয়া হাটিয়া যায়ফাটিয়া যায়, মম বক্ষ ফাটিয়া যায়। জীবনানন্দ…

Read More